সর্বশেষ সংবাদ

পছন্দের পাত্র পেলেই বিয়ে করব : কোনাল

শব্দের অর্থ হলো পদ্মফুল। কিন্তু নামের শুরুতে ‘কু’ হবে, এটা পছন্দ হলো না বাবার। তাই নাম হলো কোনাল।

হ্যাঁ, এই সময়ের জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পী কোনালের কথাই বলা হচ্ছে। পুরো নাম সোমনূর মনির কোনাল। ২০০৯ সালে চ্যানেল আই সেরাকণ্ঠ প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পর অন্য অনেকের চেয়ে নিজেকে আলাদাভাবে পরিচিত করে তুলেছেন নতুন প্রজন্মের শ্রোতাদের কাছে।

নিজের ২য় একক অ্যালবামের কাজের পাশাপাশি অনুষ্ঠান নির্মাণ, গানের অনুষ্ঠানের উপস্থাপণা করা ছাড়াও নিয়মিত স্টেজ পারফর্মেন্সে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন। গেল সপ্তাহে মালয়েশিয়ার কুয়ালালামপুরে আয়োজিত একটি আন্তর্জাতিক কনসার্টে গান গাওয়ার নিমন্ত্রণ পেয়েছেন তিনি। প্রস্তুতি নিচ্ছেন সেখানে বাংলাদেশকে রিপ্রেজেন্ট করার।


কোনালকে নিয়ে মিডিয়ায় এরই মধ্যে ডালপালা মেলেছে নানা গুঞ্জন। তরুণ সংগীত পরিচালক পৃথ্বী রাজের সঙ্গে হৃদয়ঘটিত সম্পর্কে নাকি জড়িয়েছেন তিনি। তাদের বিয়ে নিয়েও বিভিন্ন সময় শোনা গেছে নানা কথা। শেষ পর্যন্ত তারা কী বিয়ে করছেন ? আগামীতে কী কী কাজ করছেন? কী তার ভবিষ্যত পরিকল্পনা? এরকম কিছু প্রশ্ন নিয়ে কোনালের মুখোমুখি হয়েছিল প্রতিমুহূর্ত.কম।

মালয়েশিয়ায় একযোগে বিশ্বের ১৮টি দেশের টিভি চ্যানেলের সম্প্রচার শুরু হতে যাচ্ছে। এ উপলক্ষে কুয়ালালামপুরে রাষ্ট্রীয়ভাবে একটি আন্তর্জাতিক কনসার্ট আয়োজন করা হয়েছে। গেল সপ্তাহে মালয়েশিয়া থেকে সেই কনসার্টে গান গাওয়ার প্রস্তাব পান কোনাল। ওই প্রস্তাবপত্র  হাতে পেয়ে এ মুহূর্তে খুব আনন্দিত এই উচ্ছল তরুণী গায়িকা। এ প্রসঙ্গে কোনাল বলেন, “কনসার্টে একমাত্র শিল্পী হিসেবে বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করতে পারব বলে বেশ গর্বিত বোধ করছি। এত বড় অনুষ্ঠানে গান গাওয়ার সুযোগ পাওয়া সত্যিই সৌভাগ্যের ব্যাপার। এ কনসার্টে বাংলা গানকে আমি বিশ্ববাসীর সামনে তুলে ধরতে চাই।”

কনসার্টে বাংলাদেশ ছাড়া বিশ্বের আরও ১৭টি দেশের ১৭ জন সংগীত তারকা অংশ নিচ্ছেন। ১৮টি দেশ থেকে একজন করে শিল্পীকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। জানা গেছে, এ কনসার্টে প্রত্যেক দেশের শিল্পীরা গান করার জন্য ১০ মিনিট করে সময় পাবেন। কনসার্টে অংশ নেয়ার জন্য ৬ জুন কোনাল ঢাকা ছাড়বেন। এরপর ৭ জুন তিনি সেখানে টিভি চ্যানেল উদ্বোধন বিষয়ক একটি কনফারেন্সে অংশ নেবেন। আর ৮ জুন পারফর্ম করে দেশে ফিরবেন ৯ জুন। দেশে ফিরেই ব্যস্ত হয়ে যাবেন নিজের ২য় একক আর চ্যানেল আই’র জন্য একটি সংগীতানুষ্ঠান নির্মাণের কাজে।

নিজের ২য় একক অ্যালবামের ব্যস্ততা সম্পর্কে কোনাল বললেন, “পঞ্চকবির গান নিয়ে একটি পূর্ণাঙ্গ অ্যালবামের কাজ করছি। অ্যালবামের কাজ অনেকটাই এগিয়ে গেছে। আপাতত বাকি গানগুলো তৈরির কাজে ব্যস্ত আছি। এখানে আমি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, কাজী নজরুল ইসলাম, অতুলপ্রসাদ সেন, দ্বিজেন্দ্রলাল রায় ও রজনীকান্ত সেনের গানে কণ্ঠ দেব”।
শিরোনাম ঠিক না হওয়া অ্যালবামটির প্রধান বৈশিষ্ট্য হল গানগুলোর সংগীতায়োজন হবে অর্কেস্ট্রা ও পিয়ানোনির্ভর। ফিউশন না ঠিক। ওয়েস্টার্ন টাচ থাকবে। এ অ্যালবামটির সংগীতায়োজন করছেন তানভীর আলম সজীব। তবে অ্যালবামটির সংগীতায়োজনে শিল্পী বাপ্পা মজুমদারেরও যুক্ত হওয়ার কথা রয়েছে। সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে এবছরই অ্যালবামটি প্রকাশিত হবে। 

উপস্থাপনা, মডেলিং, অভিনয় ছাড়াও গানের বাইরে গায়িকা কোনালকে ভিন্ন একটিরূপে দেখা যায়। কিছুদিন আগেই ‘মা দিবস’ উপলক্ষে একটা টিভি অনুষ্ঠান নির্মাণ করেছেন তিনি। এই প্রসঙ্গে কোনাল বলেন, ‘অনুষ্ঠান নির্মাণের কাজটি আমি শখে করছি। অভিজ্ঞদের সহযোগিতা নিয়ে কাজটি আমি সফলতার সাথে সম্পন্ন করেছি। ভবিষ্যতে এমন অনুষ্ঠান নির্মাণ করতে চাই।’

যে গান দিয়ে সুরের আবেশ ছড়িয়ে কোনাল আজ এতদূর এসেছেন জানতে চাওয়া হল সেই বিষয়ে। কোনালের গানের হাতেখড়ি হয়েছিল তার গুরু মা কেকা মুখার্জির কাছে। শুদ্ধ শাস্ত্রীয় সংগীতের পাশাপাশি সব রকম গানে কোনালকে দক্ষ করে তুলেন তিনি। মা ঘরোয়া ভাবে নজরুল সংগীত গাইতেন। বাবা আবার রবীন্দ্রসংগীত ভীষণ পছন্দ করেন। সেই বাবার কর্মসূত্রে ছোটবেলা থেকেই কোনালের শিক্ষা এবং সংগীত জীবনের  প্রায় পুরো সময়টাই কেটেছে কুয়েতে। বাবা-মা দুজনেই সেখানে বিভিন্নরকম সাংস্কৃতিক সংগঠণের সাথে যুক্ত ছিলেন। ছোট্ট কোনাল বাবা-মায়ের হাত ধরে সেইসব কালচারাল প্রোগ্রামে যেতেন। আর এভাবেই পরিবার থেকে গানের অনুপ্রেরণা খুঁজে পান কোনাল। কুয়েতেই সর্বপ্রথম রবীন্দ্র-ভারতীর অধীনে একটি একাডেমীতে গান শেখা শুরু করেন তিনি।


গত বছর কোনালের ১ম একক অ্যালবাম ‘কোনাল’স জাদু’ প্রকাশিত হয়। অ্যালবামটি হিটের খাতায় নাম লেখাতে না পারলেও সংগীতবোদ্ধা মহলে ব্যাপক সুনাম কুড়িয়েছে।  এ প্রসঙ্গে কোনাল বলেন, "আমার ১ম অ্যালবামের ‘স্বপ্ন মেলেছে ডানা’, ‘আবেগী’, ‘বাংলাদেশ’, ‘জ্যোৎস্না’, গানগুলো অনেকেই পছন্দ করেছেন। পৃথ্বী রাজ এর সাথে ‘ছায়ার মাঝে’ শীর্ষক গানটির মিউজিক ভিডিওটি দর্শকদের মাঝে সাড়া ফেলেছে। আমার আত্মীয়-স্বজন, ফ্রেন্ডস, ভক্তরা সবাই আমাকে ভালো রেসপন্স করেছে। তাদের অনেকে আবার আমাকে গানের ব্যাপারে সাজেশন দিয়েছে। আমার পরবর্তী অ্যালবামটির দিকে তাই আলাদা জোর দিচ্ছি।"

খুব শিগগিরই ১ম একক অ্যালবামের আরো দুটি গানের মিউজিক ভিডিও নির্মাণের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনি। পাশাপাশি রাশেদের কম্পোজিশনে আরো ২টি নতুন মিক্সড অ্যালবামে কাজ করবেন বলেও জানান।


গানের পাশাপাশি অভিনয়েও কম যান না গ্ল্যামারাস কোনাল।  ইমপ্রেস টেলিফিল্মের ‘লাল টিপ’ সিনেমায় একটি অতিথি চরিত্রে অভিনয় করে বেশ প্রশংসা কুড়িয়েছেন সবার কাছ থেকে। বড়পর্দায় নিয়মিত হতে চান কিনা জানতে চাইলে  মিষ্টি হেসে কোনাল বলেন, ‘অনেকেই বলেছে আমি অভিনয়টা ভালো করতে পারব। কিন্তু বড়পর্দায় নিয়মিত হওয়ার আমার কোন ইচ্ছে নেই। অনেক ভাল ভাল অফার এলেও আমি ফিরিয়ে দিয়েছি। কারণ আমার ধ্যান জ্ঞান জুড়ে যে শুধুই গান। গান ছাড়া আমি থাকতে পারব না।’


শুধু গান আর অভিনয়ই নয়, উপস্থাপনা, মডেলিং, অনুষ্ঠান নির্মাণেও তাকে দেখা গেছে স্বপ্রতিভ। কোনাল কখনোই নিজেকে অলরাউন্ডার মানতে চান না। বরাবরের মতো নিজেকে শুধু গানের শিল্পী বলেই পরিচয় দেন। গান দিয়েই শুরু করেছেন, গান নিয়েই বেঁচে থাকতে চান। গানের টানেই তিনি কুয়েত ছেড়ে বাংলাদেশে স্থায়ী হয়েছেন।


উপস্থাপক হিসেবেও কোনাল অনন্য এ কথা বলার অপেক্ষা রাখে না।  তার প্রাণবন্ত উপস্থাপনা আকৃষ্ট করে সবশ্রেণীর দর্শকদের। চ্যানেল আই সেরাকণ্ঠ ২০১২-এর উপস্থাপনার জন্য বেশ  প্রশংসা কুড়িয়েছেন তিনি। এ বিষয়ে কোনাল বলেন, ‘আমি অবশ্যই গানের শিল্পী। তবে উপস্থাপণা করলেও গানের অনুষ্ঠানকেই বাছাই করি। যেহেতু আমি চ্যানেল আই পরিবারের একজন নিয়মিত সদস্য। আমার উঠে আসাটাও সেরাকণ্ঠ থেকে। তাই সেরাকণ্ঠ অনুষ্ঠানকে ব্র্যান্ডিং করা আমার দায়িত্বের মধ্যে পড়ে। আগেই বলেছিলাম সেরাকণ্ঠের অনুষ্ঠান শেষ হলে গানের শূণ্যস্থানটা  পুষিয়ে দিব। উপস্থপনা কমিয়ে দিয়েছি। এখন থেকে সবাই আমাকে গানে নিয়মিত পাবেন। গান নিয়েই আমার যত সব চিন্তা-ভাবনা এখন।’

সম্প্রতি কোনাল পারভেজের সাথে প্রথমবারের মতো একটি গানে কণ্ঠ দিয়েছেন।  ‘ভালবাসা জিন্দাবাদ’ চলচ্চিত্রের জন্য গাওয়া ‘খোদা জানে’ শীর্ষক গানটির ইতোমধ্যে তৈরি হয়ে গেছে। ‘ভালবাসা জিন্দাবাদ’ ছবিটি পরিচালনা করছেন দেবাশীষ বিশ্বাস। আর গানটির সুর-সংগীতায়োজন করেছেন শওকত আলী ইমন। এই গানটি নিয়েও কোনাল বেশ আশাবাদী।

এখনো মিডিয়ায় কোনালের সঙ্গে তরুণ সংগীত পরিচালক পৃথ্বী রাজের সম্পর্ক নিয়ে শোনা যাচ্ছে নানা গুঞ্জন। শুরুতে তাদের বিয়ের খবর শোনা গেলেও পরে গুজব রটেছে মতের অমিলের কারণে তারা একে-অপরের মধ্যকার প্রেমের সম্পর্কের ইতি টেনেছেন। এ বিষয়ে জানতে চাইলে কোনাল জানান, ‘পৃথ্বী ভারত থেকে হিন্দুস্থানি ক্ল্যাসিক্যালের উপর প্রশিক্ষণ নিয়ে দেশে ফিরেছে। এজন্য তার কাছে থেকে আমি হিন্দুস্থানি ক্ল্যাসিক্যাল শিখেছিলাম। আমাদের মাঝে যোগাযোগটা বাড়তে থাকে। ওই সময় ভালো লাগা থেকে পৃথ্বী রাজের সাথে আমার বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক গড়ে উঠে। পরবর্তীতে দুজনের মতের অমিলের কারণে সম্পর্কটি ভেঙ্গে যায় এ কথারও কোন ভিত্তি নেই। পৃথ্বীর সাথে শুরু থেকে আমার বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক ছিল। এখনো আমাদের মাঝে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক টিকে আছে।’

বিয়ে নিয়ে ভাবনা কি? কোনাল বলেন, ‘'পছন্দের পাত্র পেলেই পারিবারিক সম্মতিতে বিয়ে করব। সেটা আজও হতে পারে, কালও হতে পারে। আপাতত সেটা নিয়ে ভাবতে চাই না। গান এবং পড়ালেখা নিয়েই ব্যস্ত থাকতে চাই।’'


কোনাল বর্তমানে রাজধানীর একটি প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ে জার্নালিজম অ্যান্ড মিডিয়া স্টাডিজ বিষয়ে ৩য় বর্ষে পড়ছেন। পড়াশোনা শেষ করে কোনাল ইউনিসেফ, সেভ দ্যা চিলড্রেনের মতো সেবামূলক প্রতিষ্ঠানে যোগ দিয়ে অসহায় নারী ও শিশুদের উন্নয়নের জন্য কাজ করতে চান।

গানকে ঘিরে ভবিষ্যত পরিকল্পনা নিয়ে জানতে চাইলে কোনাল নিজের ভাবনা সম্পর্কে প্রতিমুহূর্ত.কমকে বলেন, ‘'বাংলাদেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে গিয়ে খালি জায়গায় একটি মিউজিক ইন্সটিটিউট গড়ে তুলতে চাই। এটা হবে অনেকটা রোগ-নিরাময় কেন্দ্র। যেখানে মিউজিক দিয়েই মানুষের রোগ নিরাময় করা হবে। ১০-২০ বছর যত সময় লাগুক আমি এটা প্রতিষ্ঠা করবই।'’
Designed by Copyright © 2014
Powered by Blogger.