সর্বশেষ সংবাদ

অভিনেত্রী শিখা বেঁছে নিলেন আত্মহত্যার পথ

অভিনেত্রী শিখা বেঁছে নিলেন আত্মহত্যার পথ



'বিএ পাস' সিনেমাটি যারা দেখেছেন তাদের মন থেকে শিখা জোশির নামটি সহজে মুছে যাবার কথা নয়। এ সিনেমায় এক কিশোরের সঙ্গে অবৈধ শারীরিক সম্পর্কের দুর্দান্ত সাহসি অভিনয় করে সহজেই আলোচনায় আসেন এ অভিনেত্রী। কিন্তু হঠাৎ কেন নিজেকে শেষ করে দিলেন তিনি? বেঁছে নিলেন আত্মহত্যার পথ? এ প্রশ্ন এখনও বলিউড থেকে শিখার ভক্ত অঙ্গনে ঘুরপাক খাচ্ছে। পুলিশও রহস্য উদঘাটনে গলদঘর্ম। সম্প্রতি একটি ভারতীয় সংবাদমাধ্যমে শিখার মৃত্যুর কারণ ও তার শেষ কথাগুলো নিয়ে সাক্ষাৎকার দেন তার রুমমেট।

শিখার রুমমেট নিজেও সিনেমার কাজের সঙ্গে জড়িত। তিনি এ ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শীও। তার মতে, হতাশা থেকেই আত্মহত্যা করেছেন এ অভিনেত্রী। ব্যক্তিগত জীবনে সমস্যা, অর্থনৈতিক খারাপ অবস্থা এবং নিজের মধ্যে অপরাধবোধ থেকে তৈরি হতাশার কারণে শিখা আত্মহত্যা করেছেন বলে জানান তিনি।

তার রুমমেট বলেন, 'আমি তাকে (শিখা) গত পাঁচ বছর ধরে চিনি। তিন মাস আগে তিনি আমাকে কল করেন এবং এ সময় তিনি খুব বিপর্যস্ত ছিলেন। তিনি খুব অভাবে ছিলেন এবং বেশ কয়েকটি সমস্যা নিয়ে আমার সঙ্গে আলোচনা করেন। আমি তাকে আমার ফ্ল্যাটে রেখে সাহায্য করার চেষ্টা করেছি। তার ২০ বছর বয়সি কলেজ পড়ুয়া একটি মেয়েও আছে।'

তার রুমমেট জানান, 'হতাশার জন্য চিকিৎসাও নিতেন শিখা। তার ইনসোমনিয়া (নিদ্রাহীনতা) রোগ আছে এবং তিনি অনেকবার ডাক্তারের কাছে গেছেন। তার কাছে কোনো কাজ ছিল না এবং লোকজন তার দুর্বলতার সুযোগ নিত। তিনি সবসময়ই বলতেন, ভালো মানুষ ইন্ড্রাস্ট্রিতে কাজ করে না।'

ঘটনার বর্ণনা দিতে গিয়ে শিখার রুমমেট বলেন, 'আমি একটু ঘুমিয়ে সন্ধ্যার দিকে উঠি। আমি ওয়াসরুমে যাওয়ার চেষ্টা করলে সেটি বন্ধ পাই। ভেতর থেকে একটি গোঙ্গানির মতো শব্দ হচ্ছিল কিন্তু ঠিক বুঝতে পারছিলাম না। তাকে দরজা খুলতে বলি। দশ মিনিট ধরে জোর করার পর তিনি দরজা খোলেন। কিন্তু তারপর চোখের সামনে আমি ভয়ংকর সেই দৃশ্য দেখতে পাই।'

তিনি আরো বলেন, 'আমি সে সময় আমার ফ্ল্যাটে থাকা অন্য একজন বন্ধুকে ডাকি। এবং তার শেষ মুহূর্তের কিছু কথা ভিডিও করি। আমি তাকে জিজ্ঞাসা করি কেন তিনি এমন করলেন। তখন তিনি জানান, ডা. শর্মা এবং ‍কিছু বিবাহিত ব্যক্তি তাকে অপব্যবহার করেছেন।

'এরপর প্রতিবেশি এবং বন্ধুর সহযোগিতায় তাকে পাশে কোকিলাবেন হাসপাতালে ভর্তি করি। কিন্তু ডাক্তাররা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।'

এদিকে একজন পুলিশ কর্মকর্তা জানান, ২০১১ সালে শিখা জোশি একজন ডাক্তারের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ করেছিলেন। ওই ডাক্তার ২০০৬ সালে তার ব্রেস্ট ইমপ্লান্ট সার্জারি করেছিলেন।

গত ১৬ মে শনিবার সন্ধ্যায় নিজ বাসায় গলায় ধারালো ছুরি চালিয়ে আত্মহত্যা করেন বিএ পাশ সিনেমা খ্যাত বলিউড অভিনেত্রী শিখা জোশি। রক্তাক্ত জোশিকে আন্ধেরির কোকিলাবেন হাসপাতালে নেয়া হলে চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।
Designed by Copyright © 2014
Powered by Blogger.