সর্বশেষ সংবাদ

ঢাকাই ছবির সেই চিরন্তন বাঙালি

The-evidence-of-the-eternal-image

 

বধূ, প্রেমিকা, কখনো ভাবী আবার কখনো মমতাময়ী মা বললেই যে মুখটি মনের পর্দায় ভেসে ওঠে তিনি শাবানা ছাড়া আর কেউ নন। কিন্তু হঠাৎ বদলে গেলেন তিনি। ১৯৯৭ সালে শাবানা দীর্ঘ ৩৪ বছরের কর্মজীবন শেষে হঠাৎ চলচ্চিত্রাঙ্গন থেকে বিদায় নেওয়ার ঘোষণা দেন।


এরপর তিনি আর নতুন কোনো চলচ্চিত্রে অভিনয় করেননি। ১৯৯৭ সালে ‘মেয়েরাও মানুষ’ মুক্তির পর থেকেই লোকচক্ষুর অন্তরালে চলে যান কিংবদন্তি এই অভিনেত্রী। নিউ জার্সিতে বসবাস শুরু করেন। মাঝে-মধ্যে দেশে আসেন কিন্তু মিডিয়াকে একেবারেই এড়িয়ে চলেন হিজাব পরিহিতা শাবানা।

২০০০ সালে তিনি সপরিবারে যুক্তরাষ্ট্রে চলে যান। বড় পর্দার সেই শাবানার সঙ্গে এখন বাস্তবের শাবানার কোনোই মিল নেই। ফুলহাতা কামিজ আর হিজাব সম্পূর্ণ পাল্টে দিয়েছে চিরচেনা অভিনেত্রী শাবানাকে।

চলচ্চিত্র ছেড়ে দেওয়ার পর ইসলামের পরিপূর্ণ অনুসারী হয়ে উঠেছেন চিত্রনায়িকা শাবানা। স্বামী ওয়াহিদ সাদিক, দুই মেয়ে সুমী ও উর্মি এবং একমাত্র পুত্র নাহিনকে নিয়ে তিনি যুক্তরাষ্ট্রের নিউজার্সিতে স্থায়ীভাবে বসবাস করছেন। গুণী এই অভিনেত্রী এখন অনেকটাই লোকচক্ষুর আড়ালে।

মাঝে মাঝে স্বদেশের টানে ফেরেন আবার চলেও যান। দেশে ফিরে আত্মীয়স্বজন ছাড়া কারও সঙ্গে দেখা দেন না। লাখো দর্শকের স্বপ্নের নায়িকা হিজাব পরা শাবানাকে এখন দেখলেই পরিচিতজনরা বিস্মিত হন। একজন শীর্ষস্থানীয় নায়িকা থেকে হঠাৎ পর্দার অন্তরালে নিজেকে এভাবে লুকিয়ে রাখবেন এটা কেউই ভাবতে পারেন না।

ভক্তদের স্বপ্নের মধ্যে রেখেই রুপালি পর্দা ছেড়ে চলে যাওয়ার কারণ সবাইকে এখনো ভাবিয়ে তুলে। তবে শাবানা তার ঘনিষ্ঠদের জানিয়েছেন, হজ করার পর তিনি আর ছবি না করে পর্দাশীল হওয়ার সিদ্ধান্ত নেন। তা ছাড়া এখন পরিবার-পরিজন নিয়ে সাধারণ জীবনযাপন তার খুব ভালো লাগছে। দূর প্রবাসে সংসার, সন্তান, নাতি-নাতনি নিয়েই একান্ত সময় কেটে যায় শাবানার। নামাজ-রোজা করেন নিয়মিত।

শাবানা ১৯৭৩ সালে ওয়াহিদ সাদিককে বিয়ে করেন। তখন সাদিক ছিলেন একজন সরকারি কর্মকর্তা। শাবানার প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান এস এস প্রোডাকশনের দেখাশোনাও তার স্বামীর ওপর পড়ে। তার পৈতৃক বাড়ি চট্টগ্রামের রাউজান উপজেলার ডাবুয়া গ্রামে।

গত বছরের ১৬ সেপ্টেম্বর শেষবারের মতো দেখা মিলেছিল তার।  ভাগ্নের বিয়েতে উপস্থিত হয়েছিলেন স্বামী ওয়াহিদ সাদিকের সঙ্গে। বারিধারা কনভেনশন সেন্টারে আমন্ত্রিত অতিথিদের সঙ্গে কুশল বিনিময়ের মুহূর্তে ফটোগ্রাফারদের  ক্যামেরায় ধরা পড়েন ৬৩ বছর বয়সী এই অভিনেত্রী।

যদিও ক্যামেরা দেখতেই নিজেকে আড়াল করছিলেন ‘চকোরী’, ‘ভাত দে’, ‘অবুঝ মন’, ‘বাংলার মা’সহ অসংখ্য জনপ্রিয় ছবির এই নায়িকা। বেশ কসরত করেই হিজাব পরিহিত শাবানার ছবি তুলতে হয়েছিল ফটোগ্রাফারদের। শাবানা অভিনীত সর্বশেষ মুক্তিপ্রাপ্ত ছবি ‘বিসর্জন’। এক যুগ আগে নির্মিত এই ছবিটি মুক্তি পায় ২০১০ সালে।



Designed by Copyright © 2014
Powered by Blogger.