সর্বশেষ সংবাদ

যৌথ প্রযোজনা চলনসই, আমদানি যাচ্ছে-তাই

 

নিয়ম-নীতি তোয়াক্কা না করার অভিযোগ সত্ত্বেও ঢালিউড বক্স অফিসে ২০১৫ সালে বেশ দাপট ছিল যৌথ প্রযোজনার ছবিগুলোর। সে দাপট অনেকাংশে কমে গেছে ২০১৬ সালে। সহজ ভাষায় কোনোরকমে টিকে ছিল। এদিকে অন্যান্য বছরের মতো মুখ থুবড়ে পড়েছে আমদানিকৃত ভারতীয় ছবি।


১৫ জানুয়ারি আদর এন্টারটেইনমেন্টের ব্যানারে জাজ মাল্টিমিডিয়া মুক্তি দেয় ‘অঙ্গার'। ছবিটির ভারত অংশের প্রযোজক ছিল এসকে মুভিজ। ওয়াজেদ আলী সুমন পরিচালিত ছবিটির প্রধান চরিত্রে ছিলেন ওম ও জলি। জাজের নতুন নায়িকা জলির অভিনয় মিশ্র প্রতিক্রিয়া কুড়ালেও বক্স অফিসে মুখ থুবড়ে পড়ে ছবিটি। প্রথম সপ্তাহে ৮৭টি হলে মুক্তি পাওয়া ছবিটির প্রথমদিনে বড় ২০টি হলে সেল ছিল মাত্র সাড়ে ১২ লাখ টাকা।

জাজের ‘হিরো ৪২০’ সেন্সর পায় এসএস ফিল্মসের নামে। ছবিটি ৮২টি মুক্তি পায় ১৯ ফেব্রুয়ারি। ভালোবাসা দিবসে মুক্তির কথা থাকলেও যৌথ প্রযোজনার নীতিমালা পুরোপুরি না মানায় তথ্য মন্ত্রণালয়ের সতর্কবার্তায় সেন্সর ছাড়পত্র পেতে দেরি হয়। সুজিত মণ্ডল ও সৈকত নাসির পরিচালিত ছবিটিও ফ্লপ খেতাব পায়। কারণ হিসেবে বলা হয় দক্ষিণ ভারতীয় সিনেমার একই কাহিনীতে ৩ বছর আগে মুক্তি পায় জাজের একক প্রযোজনা ‘অন্যরকম ভালোবাসা’। তাই দর্শক সিনেমাটি গ্রহণ করেনি।

ধ্বনিচিত্র লিমিটেড আমদানি করে কলকাতার ছবি ‘বেলাশেষে’। যুগল পরিচালক নন্দিতা রায় ও শিবপ্রকাশ মুখার্জী পরিচালিত ছবিটিতে অভিনয় করেন সৌমিত্র চ্যাটার্জী, স্বাতীলেখা সেনগুপ্তা, ঋতুপর্ণা ও অপরাজিতা। ২৬ ফেব্রুয়ারি এ ছবির বিনিময়ে কলকাতায় মুক্তি পায় শিহাব শাহীনের ‘ছুঁয়ে দিলে মন'। কলকাতায় মোটামুটি ভাল করে ‘ছুঁয়ে দিল মন'। অন্যদিকে স্টার সিনেপ্লেক্সের মতো অভিজাত হলেই দর্শক টানতে পারেনি ‘বেলাশেষে’। এছাড়া একইদিন মুক্তি পাওয়া আমদানিকৃত সিনেমা ‘বেপারোয়া’ অর্ধশত হল পায়। কিন্তু টাকার অঙ্কে কিছুই যোগ করতে পারেনি।

সিনেপ্লেক্সসহ দেশের বড় ছয়টি হলে ১৫ এপ্রিল মুক্তি পায় যৌথ প্রযোজনার ছবি ‘শঙ্খচিল’। গৌতম ঘোষ পরিচালিত ভারতের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার বিজয়ী ছবিটির বাংলাদেশ অংশের প্রযোজক ছিল ইমপ্রেস টেলিফিল্ম ও আশীর্বাদ চলচ্চিত্র এবং ভারত অংশে এন আইডিয়াজ লিমিটেড। প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায় ও কুসুম শিকদার অভিনীত ছবিটি প্রশংসার চেয়ে সমালোচনা কুড়িয়েছে বেশি। তবে সিনেপ্লেক্সে মোটামুটি ব্যবসা করেছে।

মে ও জুন মাসে কোন যৌথ প্রযোজনার ছবি মুক্তি পায়নি। ঈদুল ফিতরে মুক্তি পায় ‘শিকারি' ও ‘বাদশা দ্য ডন'। জাজ ও এসকের যৌথ প্রযোজনায় নির্মিত ছবি দুটি সেন্সর পায় যথাক্রমে এসএইচ ফিল্মস ও থ্রিএ মুভিজের নামে। শাকিবকে নতুন লুকে উপস্থাপন দর্শকরা লুফে নেয় ‘শিকারি’। প্রায় সাড়ে ৩ কোটি টাকা আয় করে ছবিটি। অন্যদিকে কলকাতার জিত অভিনীত ‘বাদশা দ্য ডন’ প্রথমে সপ্তাহে ৪৬টি হলে মুক্তি পেলেও তৃতীয় সপ্তাহে পায় ৯৫টি হল। আয় করে ৪ কোটি টাকা।



Designed by Copyright © 2014
Powered by Blogger.