সর্বশেষ সংবাদ

ভালোবাসা(Love) দিবসে ‘ভালোবাসা(Love)র তিনবেলা’

ভালোবাসা(Love) প্রতিদিনের, প্রতিবেলার এবং প্রতি মুহূর্তের। কিন্তু এই ভালোবাসা(Love)র রঙ কখনো সকালের মতো সোনালি আবার দুপুরের মতো প্রখর রোদের ছোঁয়া দিয়ে যায়। আবার কোথাও শেষ বেলার মতো এঁকে দেয় সুবর্ণরেখা-শান্তির আবেশ। সব মিলে বেলাকে যেমন সাধারণভাবে তিন ভাগে ভাগ করা যায় ভালোবাসা(Love)ও যেন তাই!

ভালোবাসা(Love) দিবসে ‘ভালোবাসা(Love)র তিনবেলা’

ঠিক এই এরকম এক গল্প নিয়ে ভালোবাসা(Love) দিবসকে সামনে রেখে নাট্য নির্মাতা চয়নিকা চৌধুরী নির্মান করছেন, ‘ভালোবাসা(Love)র তিনবেলা’ শিরোনামের একক নাটক। মানবকণ্ঠের সঙ্গে আলাপকালে এ কথা জানালেন চয়নিকা চৌধুরী।

তিনি জানান, ‘ভালোবাসা(Love)রও তিনটি স্তর বা তিনটি রঙ আছে। প্রথম স্তরে আবেগ আর মোহ বেশী থাকে। সাধারণতো বিয়ের আগে এই ধরণের ভালোবাসা(Love) হয়ে থাকে। এর পরের ধাপে বাস্তবতার মুখোমুখী-সময় এবং সত্যের ভেতর দিয়ে যেতে যেতে একজন আরেকজনের থেকে দূরত্ব চায়। সময়টা সংগ্রামের। চলে মনোমালিন্য কিংবা মান অভিমানের খেলা।

তৃতীয় পর্যায়ে, মানুষ যা কিছু নিজের করে জানতো-বুঝতো; এক সময় দেখতে পায়, সময় সেসব কিছুকে অনেক দূরে নিয়ে গেছে। এমনকি নিজের ছেলে মেয়েরা বড় হয়ে যায়। তারাও নানা কাজে ব্যস্ত হয়ে থাকে। এরপর আবার দুজনের কাছাকাছি আসার সময় হয়। এই সময়ের ভালোবাসা(Love) প্রগাঢ় হয়ে থাকে।

ভালোবাসা(Love) দিবসে ‘ভালোবাসা(Love)র তিনবেলা’এই যে তিনটি ধাপ, তিনটি বেলার মতো। নাটকে তাই দেখানো হয়েছে। পুরোটাই ভালোবাসা(Love)র গল্প। গল্পের বিষয়বস্তু আর পরিণতি মাথায় রেখে এর নামকরণ হয়েছে ‘ভালোবাসা(Love)র তিনবেলা’।’

টিপু আলমের মূল গল্প থেকে নাটকটি রচনা করেছেন মাসুম শাহরিয়ার। ১৪ ফেব্রুয়ারি বৈশাখী টেলিভিশনে নাটকটি প্রচারিত হবে। এতে, বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেছেন; আবুল হায়াত, শর্মিলী আহমেদ, শহীদুজ্জামান সেলিম, আফসানা মিমি, তমালিকা কর্মকার, নাজিরা মৌ, কল্যাণ, সিয়াম, নাদিয়া মীম, টাপুর টুপুর এবং আজম খান।

২৫জানুয়ারি এই নাটকটির শুটিং শেষ হয়েছে বলেও জানিয়েছেন নির্মাতা। রাজধানীর উত্তরা ও আশুলিয়ার বিভিন্ন লোকেশনে দৃশ্যধারণ করা হয়েছে।



Designed by Copyright © 2014
Powered by Blogger.