সর্বশেষ সংবাদ

আমি তোমার সঙ্গে বেঁধেছি আমার প্রাণ, সুরের বাঁধনে… ভালবাসার গান (love Song)

এই পৃথিবীতে সব ভাষায় সবচেয়ে বেশি গান গাওয়া হয়েছে কোন বিষয়টি নিয়ে বলুন তো? একদম ঠিক ধরেছেন, ভালোবাসা নিয়ে! আর স্পটলাইটের আলোর নিচে যাঁরা মঞ্চ দাপিয়ে বেড়ান, তাঁদের জীবনের ভালোবাসার মানুষটিকে সঙ্গে নিয়ে তাঁরা তো গান গাইতেই পারেন। আর মাত্র কয়টা দিন পরেই ভালোবাসা দিবস। ভালোবাসার এই রঙিন দিনকে সামনে রেখে আজ থাকছে বাস্তব জীবনে জুটিদের গাওয়া কিছু ভালোবাসার গানের  (love Song) খবর।

আমি তোমার সঙ্গে বেঁধেছি আমার প্রাণ, সুরের বাঁধনে… ভালবাসার গান (love Song)


বিয়ন্স ও জে জি

পশ্চিমা দুনিয়ায় যেখানে সকাল-দুপুর প্রেম ভাঙে, সেখানে বিয়ন্স আর জে জি শক্ত করে একজন আরেকজনের হাত ধরে আছেন টানা ১৫ বছর ধরে। ২০০২ সালে তাঁদের প্রেমের শুরু, দুজনের সেই অনুভূতিকেই ধরে রাখতে ২০০৩ সালে এই প্রেমিক জুটি একসঙ্গে বের করেন গান ‘ক্রেজি ইন লাভ’। সেই সময় শীর্ষ গানের তালিকায়ও ঠাঁই করে নিয়েছিল গানটি।

সনি অ্যান্ড শের

মার্কিন গায়ক সালভাতর বোনোর সঙ্গে শেরিলিন সারকিসিয়ানের দেখা হয়েছে লস অ্যাঞ্জেলেস শহরে। শেরিলিন তখন উঠতি শিল্পী, বোনোও। কিন্তু প্রেম কি আর কোনো বাধা মানে? যা হওয়ার ঠিক তা-ই হলো, প্রেমের জোয়ারে ভেসে গেলেন দুজন, গানের দল করলেন ‘সনি অ্যান্ড শের’ নাম দিয়ে। এই জুটির সবচেয়ে বিখ্যাত গান আই গট ইউ বেবে, গানের বিষয়ও কাঁচা বয়সের উদ্দাম প্রেম। ১৯৬৫ সালে রিলিজের পর এই গানটি টানা তিন সপ্তাহ শীর্ষ স্থানে ছিল।

অ্যাশফোর্ড অ্যান্ড সিম্পসন

১৯৭৪ সালে বিয়ের পিঁড়িতে বসার আগে থেকেই নিকোলাস অ্যাশফোর্ড ও ভ্যালেরি সিম্পসন গীতিকার জুটি হিসেবে আসন পাকা করে নিয়েছিলেন। অনেক বিখ্যাত গানের কথাই এই জুটির লেখা। শুধু গান লেখাই নয়, বিয়ের পরও নিজেদের অটুট ভালোবাসার নিদর্শন হিসেবে গাওয়া এই জুটির বিখ্যাত গান ‘সলিড’। ২০০৯ সালে সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার জন্য এই জুটি গানটি আবার ‘সলিড (অ্যাজ ওবামা)’ নামে রিমেক করেন।

জনি ক্যাশ ও জুন কার্টার

সুরের বাঁধনে প্রাণ বাঁধার সবচেয়ে বড় নজির বোধ হয় এই দুজন, জনি ক্যাশ ও জুন কার্টার। দুজনের প্রথম দেখা হয়েছিল ১৯৫৫ সালে। তারও ১২ বছর পর এই জুটি রিলিজ করেন তাঁদের ডুয়েট গান ‘জ্যাকসন’। সে সময় শীর্ষ গানের তালিকায় দ্বিতীয় স্থানে ছিল গানটি। এই সংগীত জুটি ১৯৬৮ সালে একটি গ্র্যামি অ্যাওয়ার্ডও পেয়েছিলেন এ গানটির জন্য। সেই বছরই ক্যাশ বিয়ের প্রস্তাব দেন জুনকে, তা-ও একদম গানের মঞ্চে হাজার দর্শকের সামনে! সেই থেকে এই জুটি একসঙ্গেই ছিলেন। ২০০৩ সালের মে মাসে জুন কার্টার মারা যান, এর মাত্র চার মাস পর জনি ক্যাশও মৃত্যুবরণ করেন।

কিয়ারা ফিচারিং ফিউচার

আরএনবি গায়িকা কিয়ারা ও ফিউচার ২০১৩ সালের জানুয়ারি থেকে প্রেম শুরু করেন। তার দুই মাস বাদেই বের হয় এই জুটির গান ‘বডি পার্ট’। তিন সপ্তাহ ধরে এই গানটি আরএনবি বা হিপ-হিপ টপ চার্টের শীর্ষে ছিল। এই জুটির বাগদানও হয় সেই একই বছরে।



Designed by Copyright © 2014
Powered by Blogger.